এশিয়া কাপে হারের বদলা নিতে সীমান্তে কাঁটাতার ঘেষে হাগু করছেন বাংলাদেশীরা-দেখুন বিস্তারিত

এশিয়া কাপ শেষ হয়েছে সপ্তাহ ঘুরতে চললো, কিন্তু সেই কাপ নিয়ে গুঞ্জনের শেষ নেই পার্শ্ববর্তী দুই দেশের মধ্যে। একে অপরকে ট্রল করা থেকে শুরু করে হিংসাত্মক আচরণ লেগেই আছে ফাইনালের শুরু থেকেই। বাংলাদেশী সেঞ্চুরিয়ান লিটন দাসের বিতর্কিত আউটের পর থেকেই দুই দেশের মধ্যে ঝামেলার অন্ত নেই। আম্পায়ারের ডিসিশনে বাংলাদেশী ফ্যানেরা যে বিন্দুমাত্র খুশি নন সেটা বোঝাই যাচ্ছে, যদিও আইসিসির রুল অনুযায়ী ওটা আউওটই ছিলো।

যাই হোক কথা প্রসঙ্গে উঠে এলো কিছু অজানা তথ্য। একে অপরকে দোষারপের পাশাপাশি হিংসাত্মক মেসেজ চালাচালি তো ছিলোই, সাথে শুরু হয় বিতর্কিত মিম চালাচালি। আমরা ওরাই লড়াইয়ে দেখা যায় দু দেশের প্লেয়ারদের নিয়ে অযৌক্তিক ফটোশপ যা দুই দেশের সম্পর্কের মধ্যে হানিকারক। বাংলাদেশ থেকে করা হয় সাইবার আক্রমণ তথা ট্রল মিম মেকারদের পেজ প্রোফাইলে রিপোর্ট করার ঢল। কাতারে কাতারে ফেসবুক ডিজেবল হতে শুরু করে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। এসবের মাঝেই সব বিতর্ক উস্কে দানা বেধেছে নতুন এক তথ্য। সীমান্ত লাগোয়া অঞ্চলে নাকি কাঁটাতার ঘেষে হাগু করে পালাচ্ছে কিছু সীমান্তবর্তী গ্রামের বাংলাদেশী মানুষ।

Loading...
এভাবেই বসে ছিলো শওকত

এর আগেও যুক্তিতর্কের ভিড়ে বাংলাদেশ থেকে একটি যুক্তি বরাবর দেখা যায়, “ভারতে পর্যাপ্ত পায়খানা নেই কিন্তু গোটা বাংলাদেশে নাকি পায়খানা আছে”। কিন্তু সেসব ছাপিয়ে ঘটনার সূত্রপাত মূর্শিদাবাদ ও নদীয়ার সীমান্তবর্তী গ্রামে, ২-৩ দিন যাবৎ হঠাত দেখা যায় হাগুর উৎপাত, সীমান্তে অতিমাত্রিক কারা এত হাগছে?  এবং কাঁটাতারের দেয়ালের উপর সাধারণ মানুষের পায়খানা করা তো সম্ভব নয়!! পাখিও এত হাগে না।

অতঃপর নদীয়ার লাবণীপাড়া গ্রামের বাসিন্দারা উদ্যোগ নেয় রাত জেগে পাহারা দেয়ার। ভোর ৬ টা নাগাদ হঠাৎ শব্দ শুনেই টর্চ নিয়ে ছোটে গ্রামবাসীরা, ঝোপের মধ্যে কাঁটাতারে পেছন ঠেকানো অবস্থায় ধরে প্রায় ধরে ফেলে গ্রামের রাহুল বিশ্বাস। কিন্তু ওপারে থাকা লোকটি গায়ে তেল মেখে ছিলো হাত ফস্কে বেরিয়ে যায় ছিপছিপে লোকটি। কাঁটাতারে লুঙ্গি বেঁধে আটকে আছে, আর লোকটি দৌড়াতে দৌড়াতে শাসিয়ে যায়- “আমি শওকত ওসমান, হাগবো বেশি করে হাগবো, চুরের দ্যাশ, আবার আসবো আমি হাগতে,“- জানাচ্ছেন ঘটনাস্থলে থাকা রাহুল। সকালে আলো ফুটতেই কাঁটাতারে লটকে থাকা চেক চেক লুঙ্গি আবিষ্কার করেন গ্রামবাসীরা। সীমান্তে নজর বাড়াতে গোরুচুরি কমেছে, কিন্তু এটা কেমন নতুন রোগ?

সেই বিতর্কিত লুঙ্গি

 

মূর্শিদাবাদের গ্রামের দিকে কোথাও অভিযোগ আসছে আবার অন্যরকম। ভারত পাকিস্তান সীমান্তে মাঝে মাঝেই যেমন গুলি ছোড়ে পাকিস্তান, কিন্তু প্লাস্টিকে বেঁধে পটি ছুঁড়ে মারা হচ্ছে।  নোংরামি হচ্ছে ঠিকই কিন্তু হাগুর পোটলা ছোঁড়ার অপরাধে তো আর পাল্টা গুলি ছোড়া যায় না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *